বাংলা বাংলা English English
শুক্রবার, জুন ২৫, ২০২১

দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ায় করোনা পরিস্থিতিতে প্রশ্নবিদ্ধ অভিবাসী শ্রমিকদের জীবনযাত্রার মান

সবচেয়ে পঠিত সংবাদ


আহমাদুল কবির, বিশেষ প্রতিনিধি : 

দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ায়, অভিবাসী কর্মীরা করোনা মহামারি সময়ে সব থেকে কঠিন সময় মোকাবেলা করে আসছে। এমন পরিস্থিতিতে প্রশ্নবিদ্ধ হয়ে উঠেছে তাদের জীবন যাত্রার মান।

২৪ জানুয়ারি দ্যা ষ্ট্রীট টাইমস এ প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার প্রায় ১ কোটি অভিবাসী, মালয়েশিয়া এবং থাইল্যান্ডে করোনভাইরাস সাম্প্রতিক পুনরুত্থানের মূল কারন হয়ে উঠেছে। এমন পরিস্থিতিতে ছড়িয়ে পরা এই মহামারি ঠেকানো সম্ভব নয়।

কয়েক দশক ধরে এ অঞ্চলে স্বল্প বেতনের শ্রমের উপর নির্ভর অভিবাসী কর্মীদের সমস্যা সমাধান এবং বাস্তবায়নে একটি কার্যকর দীর্ঘমেয়াদী জন-স্বাস্থ্য নিশ্চিত করতে শ্রমিকদের সুস্থ জীবিকা নির্বাহ এবং কাজের মান উন্নয়নে সরকারকেই এগিয়ে আসতে হবে। এমনটিই বলছেন বিশেষজ্ঞরা।

মালয়েশিয়া ভিত্তিক বেসরকারী সংস্থা নর্থ সাউথ ইনিশিয়েটিভের নির্বাহী পরিচালক অ্যাড্রিয়ান পেরেরা বলেন, “কোভিডের আগে অনেক নিয়োগকর্তা অভিবাসীদের নিয়োগে অগ্রাধিকার দিতেন কারণ তাদেরকে বাধ্যতামূলক কাজের মধ্যে রাখা সহজ ছিল।

“অ্যাড্রিয়ান পেরেরা আরও বলেছেন, মালয়েশিয়া ভিত্তিক বেসরকারী সংস্থা নর্থ-সাউথ ইনিশিয়েটিভ সামাজিক বিচারের উপর কাজ করে যাচ্ছে। সিঙ্গাপুর মহামারীর প্রথম দিকে এ বিষয়ে শিখেছিল। কোভিড প্রাদুর্ভাবের প্রথম সপ্তাহগুলোতে ভাইরাসটি শনাক্ত হওয়ার পরে, বিশেষ করে বিদেশি কর্মীদের বাসস্থানগুলোতে এই মহামারী বৃদ্ধির ফলে কর্তৃপক্ষ হতভম্ভ হয়েপড়ে। যা পরবর্তীতে দেশব্যাপী লকডাউন চাপিয়ে দিতে বাধ্য হয়েছিলো। দ্বীপ দেশটি তখন থেকে কঠোর ব্যবস্থা নিয়ে এই প্রাদুর্ভাবটিকে নিয়ন্ত্রণে এনেছে যার মধ্যে শ্রমিকদের চলাচলে বিধিনিষেধ বিশেষভাবে উল্লেখযোগ্য ছিল।

মালয়েশিয়ায় ব্যক্তিগত সুরক্ষার জন্য প্রয়োজনীয় রাবার সামগ্রীর চাহিদা ব্যপক এবং তা অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধিতেও বিশেষ অবদান রাখে। কিন্তু এই অর্থনৈতিক কার্যক্রম চলমান থাকার জন্য সম্প্রতি সংক্রমণ প্রায় প্রতিদিন ৪০০০ ছাড়িয়ে গেছে। এই মাসের শুরুতে, দেশের বেশিরভাগ লোকের জন্য রাজা জরুরি অবস্থা ঘোষণার সাথে সাথে লকডাউন কার্যকর করেন। মালয়েশিয়ার বেশিরভাগ নতুন সংক্রমণ বাংলাদেশ, নেপাল, মায়ানমার এবং ইন্দোনেশিয়ার মতো দেশ থেকে আসা অভিবাসী শ্রমিকদের সাথে সম্পর্ক যুক্ত।

কর্তৃপক্ষ শ্রমিকদের আবাসনগুলোতে অতিরিক্ত জনসমাগম পরিস্থিতি কমিয়ে আনছেন যা ভাইরাসের সংক্রমণের পিছনে একটি প্রধান কারণ ছিল। মানবসম্পদ মন্ত্রীর মতে মালয়েশিয়ার দেড় মিলিয়নেরও বেশি নথিভুক্ত অভিবাসী কর্মীদের মধ্যে ৯১ শতাংশ এমন জায়গায় বাস করেন যা দেশের ন্যূনতম আবাসন মান পূরণ করে না।

সর্বশেষ প্রাদুর্ভাবের সংক্রমণের অন্যতম প্রধান উৎস হলো, রাবার গ্লোভ প্রস্তুতকারক কারখানাগুলি, যা গত বছরের নভেম্বর মাসে টপগ্লোভের শ্রমিকদের মধ্যে কয়েক হাজার সংক্রমণ সনাক্ত হওয়ার পরে, সরকার তাদের আবাসস্থলে অভিযান চালায়। কর্তৃপক্ষ বিভিন্ন আবাসন মান আইনের আওতায় থাকা অপরাধের জন্য গ্লোভ নির্মাতা ব্রাইটওয়ে হোল্ডিংয়ের বিরুদ্ধে অভিযোগও দায়ের করে। টপগ্লোভ গত সপ্তাহে কমপক্ষে ৩০৫ টি নতুন কোভিড -১৯ কেস রিপোর্ট করে।

মালয়েশিয়ার নিয়োগকারীদের এখন করোনাভাইরাস সংক্রামিত অভিবাসী কর্মীদের জন্য পৃথক পৃথক কেন্দ্রও সরবরাহ করতে হবে, এই মাসের শুরুর দিকে মানবসম্পদ মন্ত্রী এম সারভানান বলেছেন, তাদের অবশ্যই কেয়ারেন্টিন, ভ্যাকসিনসহ চিকিৎসা ও জীবনযাত্রার ব্যয়ও বহন করতে হবে মালিকপক্ষকে।

সিঙ্গাপুরের সাফল্য হিসাবে দেখা গেছে, দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার সীমান্তজুড়ে অবৈধ অভিবাসনের বিরাট সমস্যা মোকাবিলার জন্য কঠোর নিরাপত্তা থাকা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।

সংক্রামক রোগ চিকিৎসা এবং অস্ট্রেলিয়ান জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক পিটার কলিগন বলেন, “করোনা নিয়ন্ত্রণে সফল দেশগুলি নিউজিল্যান্ড, অস্ট্রেলিয়া, সিঙ্গাপুর এবং তাইওয়ানের দিকে লক্ষ্য করেন তাদের মধ্যে একটি বিষয় সাধারণভাবে মিল রয়েছে, তা হ’ল তারা সীমানার নিরাপত্তা কঠোর ভাবে নিয়ন্ত্রণ করতে পেরেছেন।

মালয়েশিয়ার কর্তৃপক্ষ গত বছর লকডাউনের মাঝামাঝি সময়ে অবৈধ অভিবাসীদের লক্ষ্য করে বিদেশী কর্মীদের ধরতে বিশেষ অভিযান চালিয়েছিল, প্রক্রিয়াটিতে শতাধিক অভিবাসীকে আটক করেছিল। জাতিসংঘের সংস্থা ইন্টারন্যাশনাল অর্গানাইজেশন ফর মাইগ্রেশন অনুসারে মালয়েশিয়ায় প্রায় ২ থেকে ৪ মিলিয়ন অনিবন্ধিত শ্রমিক রয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

থাইল্যান্ডে, করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা তুলনামূলকভাবে কম, মাত্র ১৩,০০০। তবে, স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের তথ্য অনুযায়ী, অভিবাসী কর্মীরা সাম্প্রতিক সংক্রমণের মূল উৎস হয়ে উঠেছে এবং যা দেশের সমস্ত সংক্রমণের প্রায় এক চতুর্থাংশ। থাইল্যান্ডে আনুমানিক ৪ থেকে ৫ মিলিয়ন অভিবাসী শ্রমিকদের মধ্যে কিছু সংখ্যককে সামাজিক সুরক্ষা দেওয়া হয়, তবে যারা বাজারে বা খামারে কাজ করছেন তাদের মধ্যে ভাইরাসের সংক্রমণের ঝুঁকি বেশি। এই অঞ্চলে অভিবাসী শ্রমিকরা জনাকীর্ণ অ্যাপার্টমেন্টে বাস করেন, প্রায় ছয় জন একটি রুমে ভাগ করে যেখানে তারা সকাল বা রাতের শিফটের উপর ভিত্তি করে বসবাস করেন বলে জানিয়েছেন, এনজিও মাইগ্রান্ট ওয়ার্কিং গ্রুপ থাইল্যান্ডের সমন্বয়কারী অ্যাডিসর্ন কেএডমংকোল।

তবে শক্তিশালী সীমান্ত নিয়ন্ত্রণ ব্যতীত, থাইল্যান্ডের পক্ষে সর্বশেষতম প্রাদুর্ভাব দ্রুত মুক্ত হওয়া কঠিন হবে। থাই চেম্বার অফ কমার্সের ভাইস চেয়ারম্যান পজ আরামওয়াতানান্ট বলেছেন, প্রতিবেশী মিয়ানমার থেকে ক্রমবর্ধমান সংখ্যক নাগরিক বর্ধিত বেকারত্বের কারণে এবং থাইল্যান্ডে কাজ সন্ধান করতে ১,৫০০ মাইল সীমান্ত অতিক্রম করে কাজ খুঁজতে আসে।

অবৈধ অভিবাসীদের কর্মসংস্থানের সর্বশেষ প্রাদুর্ভাবকে দোষারোপকারী থাই প্রধানমন্ত্রী প্রয়ূথ চ্যান-ওচা অনিবন্ধিত শ্রমিকদের নিয়োগের প্রক্রিয়াকে কঠোর করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন। তাঁর সরকার পুলিশ পাচারকারী শ্রমিকদের তদন্ত ও গ্রেপ্তারের নির্দেশ দিয়েছে। সাখন প্রদেশের সামুদ্রিক খাদ্য বাজার এবং অভিবাসী সম্প্রদায়ের আশেপাশে কাঁটাতারের বেড়া তৈরি করা হয়েছিল, যেখানে সর্বশেষ প্রাদুর্ভাবের সূচনা হয়েছিল এবং পরবর্তীতে শ্রমিকদের স্থান ত্যাগ করতে বাধা দেয়া হয়েছিল। দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার টিকা অভিযানের সাফল্যের জন্য কার্যকর সীমান্ত নিয়ন্ত্রণ গুরুত্বপূর্ণ।

এএনইউতে কলিগন বলছেন, একটি সফল টিকাদান কর্মসূচির জন্য ৮০-৯০ শতাংশ লোককে টিকা দেওয়া দরকার। সমস্যাটি হলো যদি আপনার সীমান্ত পার হওয়ার প্রচুর লোক থাকে, বিশেষত দরিদ্র অঞ্চলগুলি বা এমন অঞ্চলগুলিতে থাকে যেখানে ভাল ভ্যাকসিন সরবরাহ নেই, তবে এর মধ্যে হঠাৎ ৯০% লোককে ভ্যাকসিন দিতে ব্যর্থ এবং তারাই সংক্রমণের সম্ভাবনাকে বাড়িয়ে দেবে।”

আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থার মাইগ্রেশনের সিনিয়র বিশেষজ্ঞ নীলিম বারুয়া বলছেন, সিঙ্গাপুর এমন একটি অর্থনীতির উদাহরণ যা “যেখানে অভিবাসী শ্রমিকরা অর্থনীতিতে উল্লেখযোগ্য অবদান রাখছে।”

গত বছরের গোড়ার দিকে যখন দৈনিক সংক্রমণের সংখ্যা এক হাজারে শীর্ষে আসে, তখন কর্তৃপক্ষ পৃথকভাবে আবাসস্থলে বাসিন্দাদের কাছে চলে আসে, তাদের অনেককেই সেখানে চলাচল সীমিত করে ছিল। এরপরে তাদের পরীক্ষা করে পৃথক করা হয়েছিল এবং কয়েক মাস ধরে ধীরে ধীরে কঠোর চেক-ইন এবং পরীক্ষার পদ্ধতিতে কাজ করতে ফেরত যেতে দেওয়া হয়েছিল। শ্রমিকদের আবাসস্থলে আক্রান্তেরর সংখ্যা তখন থেকে এখন প্রায় শূন্যের কোঠায় নেমেছে। সেরোলজি পরীক্ষায় দেখা গেছে, সিঙ্গাপুরে শ্রমিকদের আবাসস্থলে বসবাসকারী প্রায় ৩২৩,০০০ কর্মীর মধ্যে প্রায় অর্ধেকই এক পর্যায় সংক্রামিত হয়েছিল।

সিঙ্গাপুর জুনে জীবনযাত্রার মান উন্নত করতে এবং নতুন আবাসস্থল তৈরি করার দীর্ঘ মেয়াদে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ হয় যা আরও স্থান, পেশা এবং ভাল বাতাস চলাচল নিশ্চিত করে।

বারুয়া বলেছেন, মালয়েশিয়াও জীবনযাত্রার মান উন্নয়নে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ হয়েছে। থাইল্যান্ডে নিবন্ধিত অনেক অভিবাসী শ্রমিক ইতিমধ্যে বেকার বীমা প্রদান করা হয়েছে। কর্তৃপক্ষও সক্রিয়ভাবে অননুমোদিত কর্মীদের অনুমোদিত করার জন্য কাজ করে যাচ্ছে।

সিঙ্গাপুরের মাউন্ট এলিজাবেথ নভেনা হাসপাতালের সংক্রামক রোগ বিশেষজ্ঞ লিওং হো নাম বলেছেন, যদি প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর মনোভাব এক্ষেত্রে একান্ত পরিবর্তন না করে, তবে দক্ষিণ-পূর্ব এশীয় দেশগুলি মহামারীটিকে পুরোপুরি নিয়ন্ত্রণে নিতে এবং ভবিষ্যতের প্রকোপ থেকে নিজেকে রক্ষা করতে সক্ষম হওয়ার সম্ভাবনা কম।

লিওং বলছিলেন, শহর ব্যবস্থাপনা এবং ওপরিকল্পিত জনসংখ্যার মধ্যে “ভাইরাসটি বেশি বিস্তার লাভ করে।

- Advertisement -spot_img

সম্পাদক নির্বাচিত

১ মন্তব্য

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

- Advertisement -spot_img

সম্প্রতি সংবাদ